১৩ আগস্ট ২০২০

...
...


জেনারেল উবানের স্মৃতিচারণায় মুক্তিযোদ্ধা শেখ জামাল

লেখক: জেনারেল সুজন সিং উবান

তারিখ: ২৮ এপ্রিল ২০২০



কুড়ি বছরের চেয়ে কম বয়সের ছেলেটি আমাকে এমন ভাবে মুগ্ধ করেছিলো যে তাঁকে আমি নিজের ছেলের মতো স্নেহ করতাম। চাইতাম তাঁর সাথে যেন আমার বিচ্ছেদ না হয়। সে ছিলো শেখ মুজিবের কনিষ্ঠ পুত্র জামাল। জামাল পরিবারের সাথে আটক হয়ে যে বাসায় ছিলো সে বাসায় ফার্নিচার না থাকায় তাঁকে মেঝেতে ঘুমাতে হতো। পাক বাহিনী তাঁর বাড়ির চারদিকে কাঁটা তারের বেড়া দিয়েছিল যাতে কেউ দেয়াল টপকে পালাতে না পারে। বন্দিজীবন জামালের সহ্য হচ্ছিলো না তাই জামাল পালাতে চেয়েছিলো।

জামাল একজন পাঠান সৈন্যের সাথে ভাব জমায় এবং তার সহায়তায় দেয়াল টপকে পালায়। তাঁর পলায়ন খুব বিপজ্জনক ছিলো এবং ধরা পড়লে পরিবারসহ সবার উপর বিপদ আসার সম্ভাবনা ছিলো। সে কিছু ছাত্রের সহযোগিতায় ভারত পালালো। তাঁকে দেরিতে পাওয়া যায়। আমি আমার সহকর্মীদের বলেছিলাম এ বাঘের বাচ্চার বিশেষ যত্ন নিতে হবে। জামাল তাঁর জন্য বিশেষ সুবিধা নিতে অস্বীকার করলো।

জামাল অন্যান্যদের মতোই কঠোর পরিশ্রম করে যুদ্ধ কলাকৌশল শিখে নিলো। আমার চোখে তাঁর স্থান অনেক উপরে উঠে গেলো। সে অত্যন্ত পাকা হাতে অস্র ধরতো। প্রশিক্ষণের সময় সে পার্বত্য আবহাওয়াকে অত্যন্ত আপন করে নিয়েছিলো। প্রশিক্ষণের পর সে সীমান্তে চলে গেলো সেখানে কঠিন এবং ঝামেলার দায়িত্ব নিলো। সে দিন রাত কাজ করতো। তাঁর মনে সর্বদা ভয় বিরাজ করত তাঁর পিতার নিরাপত্তা নিয়ে। তাঁকে দেখে মাঝে মাঝে আমার চোখে পানি এসে যেত। জামাল ছিলো জন্মগত নেতা যেমনটি ছিলো তাঁর পিতা। আমি তাঁকে প্রায় লক্ষ্য করতাম তাঁর বাবার কিছু ভাষণ সে টেপ রেকর্ডারে সতীর্থদের শুনাতো। যখন সে একাকী থাকতো প্রায় কান্নাকাটি করতো। শুধু তাঁর পিতার জন্য নয় তাঁর মাতা এবং ছোট ভাই রাসেলের জন্যও। সে আমার গোটা পরিবারের খুব প্রিয় হয়ে উঠেছিলো।

♦️
মুজিবব বাহিনীর প্রশিক্ষণদাতা জেনারেল সুজন সিং উবান-এর স্মৃতিচারণমূলক বই ‘ফ্যান্টমস অব চিটাগং’র অংশবিশেষ।

আলোকচিত্র

শহীদ শেখ জামাল

...
...
...
...


প্রধান সমন্বয়কারী ও সম্পাদক: রুদ্র সাইফুল
যোগাযোগ: +৮৮০১৭১১০৩১১৫৯

ওয়েবসাইট নির্মাণ ও তত্ত্বাবধায়নে

এহসান আলী, কম্পিউটার কৌশল, বুয়েট